• ঢাকা
  • সোমবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ; ২০ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
  • Govt. SL. No:-352

Advertise your products here

চরম দূর্ভোগে চার গ্রামবাসী: প্রশ্ন-কবে হবে নতুন ট্রেন্ডার


ডে-নাইট-নিউজ ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০১:৪৬ পিএম;
চরম দূর্ভোগে চার গ্রামবাসী: প্রশ্ন-কবে হবে নতুন ট্রেন্ডার
চরম দূর্ভোগে চার গ্রামবাসী: প্রশ্ন-কবে হবে নতুন ট্রেন্ডার

এটিও কি চলাচল যোগ্য সড়ক?
সড়ক নির্মাণ কাজ শুরু করেই
লাপাত্তা ঠিকাদার: ট্রেন্ডার বাতিল
চরম দূর্ভোগে চার গ্রামবাসী: প্রশ্ন-কবে হবে নতুন ট্রেন্ডার?


দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার এলুয়াড়ী ইউনিয়নের লালদীঘি হাসিমপুর (লালদীঘি রোকেয়ার মোড়) থেকে ইসমাইলপুর (পাকাপান) পর্যন্ত এক কিলোমিটার সড়ক। ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে পাকাকরণ কাজ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সাফা এন্ড সিনহা এন্টারপ্রাইজ। কর্তৃপক্ষ কর্তৃক তাগিদ দেয়ার পর ২০২২ সালের মে মাসে সড়কটির মাটি খনন (বক্স কাটিং) করেই লাপাত্তা হয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। ১ বছর পূর্বে বর্ষায় খনন করা লাল মাটির সড়কটি এবারো বর্ষায় পুরোই কাঁদায় ভরা। সড়কটি দিয়ে হেঁটেও চলাচল করা যেনো দুঃসাধ্যের বিষয়। বিশেষ করে দুর্ভোগ বেড়েছে চার গ্রামের কৃষক, শিক্ষার্থীসহ বৃদ্ধ ও প্রসূতির।.

 জানা যায়, এলুয়াড়ী ইউনিয়নের পাকাপান, দাসপাড়া জুঝারপুর, পার্বতীপুর ও গৌরীপাড়া চারগ্রামের ওপর দিয়ে যাওয়া এক কিলোমিটার কাচা সড়কটি ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে পাকাকরণের কাজ শুরু হয়। ভেকু দিয়ে ২০২২ সালের ১২ মে সড়কটি খনন করেই লাপাত্তা হয়ে যায় ঠিকাদার। ওয়ার্ড মেম্বারসহ এলাকাবাসী একাধিকবার ফোনকল করলেও খোঁজ মিলেনি ঠিকাদারের। পরে ২০২২ সালের ২২ জুন উপজেলা প্রকৌশলী ৭ দিনের মধ্যে নীলফামারীর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সাফা এন্ড সিনহা এন্টারপ্রাইজকে মালামাল মজুদসহ সড়কটির কাজ শুরু করার নির্দেশ দিলেও তা করেনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। পরে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পিপিআর ২০০৮ অনুযায়ী ব্যবস্থাগ্রহণ করে ট্রেন্ডারটি বাতিল করা হয়। .

 .

 সরেজমিনে দেখা যায়, পুরো সড়কটি লাল মাটির। সামান্য বৃষ্টিতে কাঁদায় পিচ্ছিল হয়ে যায় সড়কটি। ফলে যানবাহন তো দূরের কথা, কাঁদায় একাকার ওই রাস্তায় পায়ে হেঁটেও চলাচল কষ্টকর। বিকল্প সড়ক না থাকায় গত একবছর থেকে কষ্ট করেই কর্দমাক্ত ওই রাস্তায় চলাচল করতে হচ্ছে চারগ্রামবাসীকে। অসীম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে কৃষক, শিক্ষার্থীসহ বৃদ্ধ ও প্রসূতিকেও।.


    স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অফিসের হিসাব অনুযায়ী, ২০২১ সালের ১৪ মার্চ সড়কটি নির্মাণকাজের চুক্তি স্বাক্ষর করেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। যা ওই বছরের ২০ সেপ্টেম্বর কাজ শুরু হয়ে চলতি বছরের ১৯ সেপ্টেম্বরে কাজ সম্পন্ন হবে। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরেও কাজ শুরু না করায় গত ২০২২ সালের ১৬ মার্চ কাজ শুরু করতে তাগিদপত্র প্রদান করা হয়। পত্রটি প্রাপ্তির পর ওই বছরের ১২ মে সড়কটি বক্স কাটিং করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি। তারপর থেকেই ঠিকাদারের খোঁজ মিলে না। খনন হওয়া সড়কটি বৃষ্টির পানিতে চলাচলের অনুপযোগী হলে গ্রামবাসী ও জনপ্রতিনিধিরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। পরে গত ২২ জুন উপজেলা প্রকৌশলী স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে সাত দিনের মধ্যে কাজ শুরু করার নির্দেশ প্রদান করা হয়।..


দুর্ভোগে শিকার গ্রামবাসী ননীগোপাল রায়, মদন রায়, গোপলা রায়, রিপন চন্দ্র ও জাকির হোসেন বলেন, রাস্তাটি পাকাকরণের জন্য ২০২২ সালে মাটি খনন করে আর আসেনি ঠিকাদার। এমনিতেই জায়গাটি লাল মাটি এলাকা। মাটি খননের কারণে সামান্য বিষ্টি হলেই সেই সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে ওঠে। সড়কটিতে যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটেই চলাচল দুষ্কর হয়ে ওঠেছে। গ্রামগুলোতে ভ্যানও ঢুকে না এখন। তাই বিকল্প সড়ক না থাকায় বাধ্য হয়ে কাঁদামাটি মেখেই স্কুল-কলেজে যেতে হচ্ছে গ্রামের শিক্ষার্থীদের। বেশি টাকা খরচ করে ধান/চাল বাঙ্কারাতে করে বহণ করতে হচ্ছে গৃহস্থদের। এছাড়াও বিশেষ সমস্যায় পোহাতে হচ্ছে বৃদ্ধদের। সড়কের বেহাল দশার কারণে গ্রামের মেয়ে-জামাইরাও আর আসতে চায় না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষেও কোনো প্রকার উদ্যোগ নেয়না। আমরাও মানুষ। এগুলো ভুলে যায় চেয়ারে বসা ওইসব কর্মকর্তারা। দ্রুত সড়কটি সংস্কার না হলে আমরা আন্দোলন করতে বাধ্য হব। .


ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার জাহাঙ্গীর হোসেন বাবু ও ৭ নং ওয়ার্ড মেম্বার ফয়জার রহমান বলেন, উপজেলা প্রকৌশলীকে গ্রামবাসীর দুর্ভোগের বিষয়টি জানানো হয়েছে। তারা ব্যবস্থাগ্রহণ করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। উপজেলা প্রকৌশলী মিজানুর রহমান সরদার বলেন, মেসার্স সাফা এন্ড সিনহা এন্টারপ্রাইজ নামের ঠিকাদার কাজটি না করায় ওই ট্রেন্ডারটি বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে ট্রেন্ডার দিয়ে ঠিকাদার নিযুক্ত করে কাজ শেষ করা হবে। . .

ডে-নাইট-নিউজ / প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

সম্পাদকীয় বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ