• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ; ১১ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
  • Govt. SL. No:-352

Advertise your products here

  বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র: মধ্য আগস্ট পর্যন্ত কয়লা মজুদ শিগগির কয়লা উত্তোলনের প্রস্তুতি


ডে-নাইট-নিউজ ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ০২ আগষ্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ০৪:২৪ পিএম;
   বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র: মধ্য আগস্ট পর্যন্ত কয়লা মজুদ শিগগির কয়লা উত্তোলনের প্রস্তুতি
  বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র: মধ্য আগস্ট পর্যন্ত কয়লা মজুদ শিগগির কয়লা উত্তোলনের প্রস্তুতি

বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র:
মধ্য আগস্ট পর্যন্ত কয়লা মজুদ
শিগগির কয়লা উত্তোলনের প্রস্তুতি
মধ্য আগস্টের পর কয়লা না মিললে চালু একমাত্র বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী ইউনিটটিও বন্ধের শঙ্কা


মধ্য আগস্টের মধ্যে কয়লা না মিললে দেশের একমাত্র কয়লাভিত্তিক দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর পার্শ্ববর্তী বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের তিনটি ইউনিটের মধ্যে বর্তমানে একমাত্র চালু ইউনিটটিও এরপর বন্ধ হওয়ার শঙ্কা দেখা দিবে। তবে মধ্য আগস্টের আগেই বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র ও বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের যৌথ প্রচেষ্টায় কয়লা উত্তোলনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী এসএম ওয়াজেদ আলী সরদার।.

জানা যায়, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে উৎপাদিত কয়লা (জ্বালানি) দিয়েই এই তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়। ৫২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের চালু একমাত্র ইউনিট থেকে চাহিদা অনুযায়ী ১৮০-২৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে। তা পুরোটাই জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ দেয়া হচ্ছে।.

তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী এসএম ওয়াজেদ আলী সরদার বলেন, চলতি বছরের ১ মে কয়লাখনির ১৩১০ নং ফেইজ (কুপ) পরিত্যক্ত হওয়ায় কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়। তখন থেকে মজুদকৃত কয়লা দিয়েই বিদ্যুৎ উৎপাদন চলছে। কয়লা স্বল্পতার কারণে বর্তমানে তিনটির মধ্যে একটি ইউনিট চলছে। গত ২৭ জুলাই দীর্ঘ ৮৭ দিন পর ১৩০৬ নং নতুন ফেইজ থেকে পরীক্ষামূলক কয়লা উত্তোলন শুরু করে খনি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ৩৪ জন চীনা শ্রমিকসহ ৫২ জন শ্রমিক করোনা আক্রান্ত হলে তিনদিনের মাথায় আবারো বন্ধ হয়ে যায় কয়লা উত্তোলন। তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের মজুদকৃত কয়লা দিয়ে মধ্য আগস্ট পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব। এরমধ্যে খনিতে কয়লা উত্তোলন শুরু না হলে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের চলমান একমাত্র ইউনিটে বিদ্যুৎ উৎপাদন কয়লার অভাবে বন্ধ হওয়ার শঙ্কা দেখা দিবে।.

তিনি আরো বলেন, মধ্য আগস্টের আগেই বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র ও বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের যৌথ প্রচেষ্টায় কয়লা উত্তোলনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে। কয়লা উত্তোলন শুরু হলেই মধ্য আগস্টের পর বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার শঙ্কা কেটে যাবে। আমরা আশাবাদী খুবশিঘ্রই কয়লাখনি থেকে কয়লা উত্তোলন হবে।.

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাইফুল ইসলাম সরকার বলেন, দীর্ঘ ৮৭ দিন পর ঠিকঠাকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু হলেও খনিশ্রমিকদের মাঝে করোনা ছড়িয়ে পড়ায় তিনদিন পর তা আবারো বন্ধ হয়ে যায়। তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের সাথে যৌথ প্রচেষ্টায় কয়লা উত্তোলন শুরু প্রক্রিয়া চলছে। শিগগির বাহিরের শ্রমিকদের করোনা পরীক্ষার মাধ্যমে কাজে যোগদান করিয়ে কয়লা উত্তোলন শুরু হবে করা হবে।
 .

.

ডে-নাইট-নিউজ / প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

সারাদেশ বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ